BangladeshNEW ZEALANDPAKISTANSOUTH AFRICASRILANKA

দেখুন ইতিহাসে খেলোয়াড়দের উপরে যেসব হামলা গুলো হয়েছে !

খেলাধুলা এমন একটি হাতিয়ার যা বিশ্বে শান্তি প্রচার করে। একজন খেলোয়াড় জীবনের সবটুকু সময়ই মানুষকে আনন্দ দেয়ার কাজেই নিজেকে ব্যাস্ত রাখেন। আর তারই প্রয়োজনে তাদেরকে দেশ বিদেশে ঘুরে বেড়াতে হয়। আর এই ঘুরে বেড়ানোর মাঝে তাদের পড়তে হয় নানান রকমের বিপদে। ক্রীড়াবিদের উপরে এর আগেও অনেক হামলার ঘটনা ঘটে।

১.
১০৭২ মিউনিখ অলিম্পিক: ১৯৭২ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ক্রীড়াবিদদের বিরুদ্ধে লক্ষ্যবস্তু সহিংসতার সবচেয়ে মারাত্মক ঘটনা ঘটল। এগারো ইসরায়েলি ক্রীড়াবিদ এবং কোচকে জিম্মি করা হয় এবং অবশেষে ১৬ ঘন্টা সংঘর্ষের সময় সন্ত্রাসীদের দ্বারা হত্যার ঘটনা ঘটেছিল, যার মধ্যে বিশ্বব্যাপী ছবির চিত্রনাট্য ঘটেছিল।

 

 

 

 

 

১০৮৭ শ্রীলঙ্কার নিউজিল্যান্ড সফর (ক্রিকেট): এটি একটি তিন টেস্টের সফর ছিল কিন্তু প্রথম টেস্টের পরে কলম্বোর টিম হোটেলে আলাদা আলাদা বোমা বিস্ফোরণে ১১৩ জন বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করে।

 

২০০২ সালের নিউজিল্যান্ড সফর পাকিস্তান ক্রিকেট (ক্রিকেট): ২০০২ সালে নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট দল পাকিস্তান সফরে যাচ্ছিল যখন তাদের হোটেলের বাইরে একটি বোমা বিস্ফোরণে ১২ জন নিহত হয়েছিল। খেলোয়াড়রা অসহায় ছিল কিন্তু ব্ল্যাক ক্যাপস বোর্ড দলকে ফিরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর এক বছর আগে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১১ সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলার কারণে মধ্যপ্রাচ্য ফিরে যাওয়ার আগে নিউজিল্যান্ড পাকিস্তান সফরে যাওয়ার পথে ছিল। সিরিজ অবশেষে পরিত্যক্ত হয়।

২০০৯ শ্রীলঙ্কার পাকিস্তান সফর (ক্রিকেট): লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টের তৃতীয় দিন। বাসটি কমপক্ষে এক ডজন সন্ত্রাসী দ্বারা আটকা পড়ে, যার ফলে ছয় শ্রীলংকার খেলোয়াড় এবং বাস চালকের মৃত্যু হয়। ছয় পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন দুইজন বেসামরিক নাগরিক। লংকান দলটি দেশে ফিরল এবং তখন থেকে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক ম্যাচ হোস্ট করেনি।

২০১০ আফ্রিকান নেশনস কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট: টোগোর জাতীয় ফুটবল দল আফ্রিকান ন্যাশনাল কাপের আঙ্গলান প্রদেশের মধ্য দিয়ে ভ্রমণ করেছিল, যখন দলটি বন্দুকধারীর হামলার সম্মুখীন হয়। এ হামলায় পাশের সহকারী ব্যবস্থাপক ও মিডিয়া অফিসার নিহত হন।

২০১৯ নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর (ক্রিকেট): সফরের তৃতীয় ও শেষ টেস্টের শুরু হওয়ার একদিন আগে, বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ক্রাইস্টচার্চের মসজিদ আল নূর মসজিদে শুক্রবার নামাজের পথে যাচ্ছিলো, মসজিদটি একজন বন্দুকধারীর আক্রমণের শিকার হয়, যাকে অস্ট্রেলিয়ান চরমপন্থী হিসাবে চিহ্নিত হয়েছিল এবং ৪৯ জনকে হত্যা করেছিল। খেলোয়াড়রা নিরাপদ থাকল কিন্তু সফর বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *